Author: Quiz Bangla

নিজের যত্ন নিচ্ছেন তো?

নিজের যত্ন নেবার ইচ্ছা সবারই থাকে কিন্তু অভাব শুধু সময়ের। এই ব্যস্ত জীবনে সংসার, কাজ, লেখাপড়া ইত্যাদি শতেক ঝামেলা শেষে দেখা যায় নিজের যত্ন নেওয়ার মতো সময় বের করা হয় না। আর সেই কারণেই হয়ত অবসাদগ্রস্তদের দলে নিজের নাম লিখিয়ে ফেলেন, হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েন। জীবনে আমাদের নিজেদের যত্ন নেয়া একটা অত্যাবশ্যক বিষয়। নিজের অনুভুতি কে উপেক্ষা করলে তা সমস্যার সৃষ্টি করে। তাই কঠিন চাপ বা পরিস্থিতি হওয়ার যেকোনো লক্ষণ দেখার সাথে সাথেই সেখান থেকে উত্তরণের উপায় আপনাকেই খুঁজতে হবে। চলুন জেনে নেই এমন কিছু অভ্যাস যেগুলোর দ্বারা সহজেই নিজের প্রতি যত্নবান হতে পারবেন। ১। অবসর সময়কে ভাগ করে নিন জীবনের এই ব্যস্ততার ভীড়ে অবসর সময় বের করা একটু কঠিনই। তবুও যাই পাওয়া যায়, সেটুকুকে ভাল ভাবে কাজে লাগান। অবসর সময়কে বিভিন্ন ভাগে ভাগ করে নিন। অবসরের রুটিনে রাখুন খানিকটা খেলাধুলা, আড্ডা কিংবা একটু ইন্টারনেটে দুনিয়াটা দেখে নেওয়া। পরিবারকে ব্যস্ততার মাঝে সময় দেয়া হয়না তাই অবসরে তাদের সাথে ভাল কিছু মুহূর্ত কাটান। ২। দিনের শুরুটা হোক মেডিটেশনের মাধ্যমে মানসিক প্রশান্তি শুধু সাফল্য লাভের জন্যই নয়, বরং সবক্ষেত্রেই প্রয়োজন। এটি হচ্ছে সাফল্যের অন্যতম পূর্বশর্ত। মানসিক প্রশান্তি অর্জনের একটি অন্যতম উপায় হলো মেডিটেশন। তাই মেডিটেশন করুন, দেখবেন, মনকে কিছুটা হলেও শান্তি দিতে পারছেন। আমরা দৈহিক শক্তি বা সুস্থ্যতা নিয়েই বেশি সচেতন থাকি। কিন্তু মন ভাল না থাকলে শরীরও সুস্থ থাকে না। আর মনে খাবার হলো মেডিটেশন। খুব সকালে নিশ্চুপ প্রকৃতির সাথে কিছু সময়ের জন্যে একাত্ম হয়ে যান। ৩। শারীরিক কসরত অধিকাংশ সফল...

Read More

কিভাবে নিজের দর্শন ক্ষমতা বাড়াবেন?

‘দর্শন’ কথাটি শুনলেই মনে হতে পারে খুব জটিল কিছু হয়তো। কারণ যারা দর্শন নিয়ে কাজ করে, তাদের আমরা দার্শনিক বলে থাকি। কিন্তু আপনি জানেন কি, প্রতিটি মানুষকেই এই দর্শনের পথ ধরেই জীবনে চলতে হয়? সহজ করে বলি। এই যে আমরা চলছি, ফিরছি, কাজ করছি… প্রতিটি কর্মকান্ডের পেছনেই রয়েছে আমাদের পরিকল্পনা। আর এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে আমরা কত কিছুই না করি। কত চিন্তা আর শ্রম দিয়ে দেই এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে। এই যে পরিকল্পনা, কিভাবে কোনো কিছু করা যায়, কেন করবো, কবে করবো এসব নিয়ে ভাবাটাই কিন্তু দর্শনের আওতায় পড়ে। সুতরাং, আমরা প্রত্যেকেই কিন্তু একেকজন দার্শনিকই বটে। কিন্তু এই দর্শন ক্ষমতা সবার...

Read More

আপনার প্যাশনকে প্রোফেশনে রূপান্তর করবেন যেভাবে

প্যাশন আর প্রোফেশন, এই শব্দগুলোর সাথে অনেকেই খুব ভালো করে পরিচিত। আবার এমন অনেকেই আছেন যারা এই দুইয়ের মধ্যে পার্থক্যটি সম্পর্কে খুব একটা সচেতন না। বিশেষ করে কিশোর কিশোরীরা অল্প বয়সে প্রোফেশন কথাটি শুনে থাকলেও, প্যাশন কথাটির সাথে পরিচিত নয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে আমাদের সকলের উচিৎ তাদের এই দুইয়ের মাঝের পার্থক্যটি ভালোভাবে বুঝিয়ে দেয়া, যাতে করে ভবিষ্যতে তারা নিজদের প্যাশন এবং প্রোফেশনটির মধ্যে সমন্বয় সাধন করতে পারে। কিন্তু আমরা যারা প্যাশন আর প্রোফেশন সম্পর্কে জানি, তারা কতটুকু এই দুইয়ের মধ্যে সমন্বয় করতে শিখেছি বা জানি? এমন অনেকেই আছেন যাদের প্যাশন আর প্রোফেশন সম্পূর্ণ আলাদা। কারণ অনেকেই মনে করেন, তার যে...

Read More

আচরন এবং শিষ্টাচার সম্পর্কিত প্রয়োজনীয়  টিপস

শিষ্টাচার একটি অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ভাল আচার আচরন অনেক ব্যাপক প্রভাব ফেলে। ছোটবেলা থেকেই আমাদেরকে বিভিন্ন আচার ব্যবহার শিখতে হয়। পরিবেশ অনুযায়ী, বয়স অনুযায়ী আমাদের এই আচার আচরন পরিবর্তিত হয়। পারিবারিক জীবন থেকে শুরু করে শিক্ষাজীবন, কর্মজীবন সবকিছুতেই আমাদের আচার আচরন মেনে চলতে হয়। খাবার টেবিলে, খেলার মাঠে, বাথরুম কিংবা কোন অনুষ্ঠানে সবজায়গায় নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম আছে যা আমাদের সকলের মেনে চলা উচিত। এখন যেহেতু ভারচুয়াল জগতে আমরা সবাই বিচরণ করি সেখানেও কিন্তু আমাদের ভদ্রতা বজায় রাখা উচিত। আমরা আজকে বেশ কিছু আচার পদ্ধতির টিপস নিয়ে জানব যেগুলো আমাদের মেনে চলা উচিত। যার ফলে আমরা...

Read More

অতি সংবেদনশীলতাঃ চিনে নেবার কিছু উপায় 

সম্পর্কের ক্ষেত্রে সংবেদনশীল হওয়া ইতিবাচকতার পরিচায়ক; অন্যের চাহিদা, অনুভূতি, বক্তব্যের প্রতি সহানুভূতিশীল হয়ে উঠতে সংবেদনশীলতার প্রয়োজন। কিন্তু অতি সংবেদনশীলতা একজনের জন্য মানসিক এমন কি শারীরিক ক্ষতিও বয়ে আনতে পারে। সংবেদনশীলতার মধ্য দিয়ে একজন মানুষের ব্যক্তিত্বের প্রকাশ ঘটে। কিন্তু জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে মাত্রাতিরিক্ত সংবেদনশীলতা একজন মানুষকে নেতিবাচক করে তুলতে পারে। পারিবারিক, বন্ধুত্ব কিম্বা প্রেম, কর্মক্ষেত্রে, ব্যক্তিগত ও জাতীয় জীবনে সকল বিষয়ে অতীব সংবেদশীলতা বা প্রতিক্রিয়াশীল হয়ে থাকাটা সার্বিকভাবে একটি বিরূপ প্রভাব সৃষ্টিকারী প্রবৃত্তি। অতি সংবেদনশীল মানুষ কখনই কাউরো সাথে সহজে মেলামেশা করতে পারে না কেননা নানা প্রকারের নেতিবাচক বোধ যেমনঃ লজ্জা, ভয়, অভিমান, উদ্বেগ ইত্যাদি মনে ভীড় করে থাকে। একজন...

Read More