প্রতিটা বাবা মা চায় তাদের সন্তানদের ফলাফল যেন ভাল হয়। পরীক্ষায় ভাল করে। তারা অনেক কষ্ট করে তাদের সন্তানদের জন্য। কিন্তু অনেক সময় সন্তান ভাল ফলাফল করতে পারেনা। তখন অনেক সময় বাবা মায়েরা রেগে গিয়ে সন্তানকে বিভিন্নভাবে শাস্তি দেন। শারীরিক বা মানসিক নির্যাতন করেন। যা কোন মতেই ঠিক না। এই লেখাটিতে আমরা সন্তান খারাপ ফল করলে কি করা যায় তা নিয়ে কিছু কথা বলব।

প্রথমেই আসি সন্তান খারাপ ফল কেন করে। ভাল করে পড়াশুনা করা সত্ত্বেও অনেক বাচ্চা পরীক্ষায় ফেল করে কিংবা খুব খারাপ ফলাফল করে। বা অনেকেই পড়তে চায়না। এর কারনগুলো হলঃ

১। পরীক্ষাভীতিঃ অনেক বাচ্চাই পরীক্ষাকে মারাত্মক ভয় পায়। পরীক্ষার হলে অনেক নার্ভাস হয়ে পড়ে। পড়া জিনিশগুলো ভুলে যায়। অনেকে পরীক্ষার আগেই কান্না শুরু করে। কেউ বা পরীক্ষা হলে না লিখে বসে থাকে।

২। অতিরিক্ত চাপঃ বাবা মা অনেক সময় সন্তানদের প্রচুর চাপ দিয়ে থাকেন পরীক্ষায় ভাল করার জন্য। মুলত প্রতিযোগিতামূলক একটি অবস্থার তৈরি হয় তখন। যা শিশুমনে চাপ দেয়।

৩। আত্মবিশ্বাসের অভাবঃ অনেক শিশুর মধ্যেই আত্মবিশ্বাস কম থাকে। যার ফলে ভাল করে পড়ার পরও কাঙ্ক্ষিত ফল লাভ করতে পারেনা।

৪। ভুল পদ্ধতিতে পড়াশুনা করাঃ শিশুরা অনেক সহজ সরল হয়। ওরা অনেক সময় বুঝতে পারেনা কীভাবে পড়বে। এমনকি বাবা মায়েরাও অনেক সময় বুঝে উঠতে পারেন না কীভাবে সন্তানকে পড়াবেন। তাই সঠিক গাইডলাইনের অভাবে সন্তান ফল ভাল করতে পারেনা।

৫। ভুলে যাওয়াঃ অনেক বাচ্চা আছে খুব দ্রুত পড়া ভুলে যায়। যার জন্য পরীক্ষায় খারাপ ফল করে।

আমরা কিছু পয়েন্ট জানলাম কেন বাচ্চারা খারাপ ফল করে। এবার জানব বাবা মায়ের কর্তব্য কি যখন সন্তান ভাল ফল করছেনা।

১। হতাশা দেখাবেন নাঃ খারাপ ফলের জন্য সন্তানকে আপনার হতাশা দেখাবেন না।বরং সন্তানকে সাপোর্ট দিন। কারন খারাপ ফলের জন্য তারও মন খারাপ থাকে। এই সময় আপনার মন খারাপ টাকে আরও হতাশ করে দিবে। আপনার সাপোর্ট এই সময়টায় খুব জরুরি।

২। ঠাণ্ডা মাথায় কথা বলুনঃ সন্তানের সাথে বসে ঠাণ্ডা মাথায় কথা বলুন। রাগারাগি করবেন না। কথা বলে বুঝুন কথায় তার সমস্যা। কি কারনে তার ফলাফল খারাপ হচ্ছে। তার ভয়, সমস্যা সব কিছু জেনে নিন।

৩। তুলনা করবেন নাঃ অনেক সময় বাবা মায়েরা বাচ্চাদের অন্য কোন বাচ্চার সাথে তুলনা দেন। এতে বাচ্চা মানসিকভাবে আরও ভেঙ্গে পরে। তাই এই কাজটি করবেন না।

৪। তাকে বিশ্রাম দিনঃ অনেক সময় অতিরিক্ত পরিশ্রমে বাচ্চারা হাঁপিয়ে উথে।তাই তাদের পর্যাপ্ত বিশ্রাম দিন। কোথাও ঘুরতে নিয়ে যান এবং সময় কাটান।

৫। সঠিক পদ্ধতিতে শিখানঃ সন্তানকে সঠিকভাবে পড়াশুনা করতে সাহায্য করুন। ছবি দেখিয়ে, ছড়ার মাধ্যমে কিংবা লিখার মাধ্যমে পড়াতে পারেন। রুটিন করে দিন। এবং সেই রুটিন অনুযায়ী পড়ান।

৬। বাচ্চাকে বুঝতে দিনঃ সন্তানকে বুঝতে শিখান তার দুর্বলতা এবং সবলতা। কোন বিষয়ে সে পারদর্শী আর কোন বিষয়ে সে দুর্বল এটা যেন সন্তান নিজেই বুঝতে পারে সেই বিষয় খেয়াল রাখুন। তাকে শিখান। এতে সে নিজেই নিজের সমস্যা বুঝে কাজ করতে পারবে।

৭। উৎসাহ দিনঃ সন্তানকে উৎসাহ দিন সব সময়। যে কাজই সে করুক তাকে উৎসাহ দিন। এতে সন্তানের মধ্যে আত্মবিশ্বাস তৈরি হবে এবং ভয় দূর হবে।

৮। ভাল অভ্যাস গড়ে তুলুনঃ সন্তানের মধ্যে ভাল খাদ্য গ্রহনের অভ্যাস, শরীরচর্চার অভ্যাস, পরিষ্কার পরিছন্নতার অভ্যাস গড়ে তুলুন। সঠিক খাদ্য দিন তাকে যেটা তার মধ্যে উদ্বেগ, চিন্তা দূর করতে সাহায্য করবে।

৯। তার পড়াশুনা প্রতিনিয়ত চেক করুনঃ সন্তানের পড়াশুনার অগ্রগতি নিয়মিত খেয়াল রাখুন। যে বিষয়ে দুর্বল দরকার হলে সে বিষয়ের জন্য আলাদা টিউটর রাখতে পারেন। বারবার তাকে ওই বিষয় অনুশীলন করান। বাড়িতে মাঝে মাঝে পরীক্ষা নিতে পারেন। এতে তার পরীক্ষাভীতি দূর হবে। আবার খুব ভাল অনুশীলন হবে।

১০। অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা গ্রহনঃ সন্তানকে অতীতের ভুল থেকে শিক্ষা গ্রহন করতে দিন। এতে সে নিজের অবস্থান বুঝবে। আগের পরীক্ষার খাতা দেখে তার ভুলগুলো বুঝিয়ে দিন। এতে অনেকটা সহজ হয়ে যায়।

 

তথ্যসূত্রঃ http://www.bright-culture.com/12-tips-for-parents-when-your-child-dont-do-well-for-their-exams/

http://zeenews.india.com/health/exam-failure-what-parents-should-do-if-their-child-fails-out-of-school-college-2010452

http://www.indiaparenting.com/stories/128_910/my-child-fails-every-test.html