ভবিষ্যৎ! এই একটি শব্দকে নিয়েই আমরা বেঁচে থাকি। আমিরা সবসময় ভাবি, ভবিষ্যতে আমরা কি করবো? ভবিষ্যতের জন্য আমরা কতটুকু প্রস্তুত করছি নিজেকে? এমন অনেক প্রশ্নই আমরা নিজেদের করে থাকি। তবে এই প্রশ্নগুলো সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে তরুন সমাজের মনে। কারণ তাদের সামনে পড়ে আছে বিশাল এক পৃথিবী।

সে যাই হোক। ভবিষ্যৎ নিয়ে যেহেতু আমরা সবাই কম বেশি দুশ্চিন্তাগ্রস্ত, সেহেতু আমাদের ভবিষ্যৎ গড়তে কিছু সঠিক দিক নির্দেশনা প্রয়োজন৷ আসুন, আজ আমরা তেমনই কিছু বিষয় জেনে নেই, যা আমাদের ভবিষ্যৎ গড়তে সাহায্য করবে৷

ক্যারিয়ার  গড়তে যা করবেন

প্রফেশনাল এসোসিয়েশানে যোগদান করুন

প্রফেশনাল এসোসিয়েশান হলো এমন একটি স্থান যা পরিচালিত হয় একদল প্রফেশনালদের দ্বারা, যেখানে অন্য অনেক প্রফেশনালদের আনা গোনা হয়। এসব এসোসিয়েশানে বিভিন্ন প্রোগ্রামে অনেক ভলান্টিয়ার নিয়োগ হয়ে থাকে৷ এধরনের ভলান্টিয়ার হিসেবে কাজ করলে সেখানকার পরিচালকরা তাদের প্রফেশনাল গন্ডিতে থাকা ব্যক্তিদের সাহায্যে আপনাকে এন্ট্রি লেভেলের চাকরি বা অন্তত ইন্টার্নশিপের ব্যবস্থা করে দিতে পারে৷

ধাপে ধাপে সিঁড়ি বেয়ে উঠার চেষ্টা করুন

কোনো কাজে কেউই হঠাৎ করে উন্নতি করতে পারে না৷ ধাপে ধাপে সামনে এগোতে হয়। ক্যারিয়ার গড়তে হলেও আপনাকে ধাপে ধাপে সিঁড়ি পেরোতে হবে। প্রথমে কোনদিকে আপনার পেশা গড়তে চান, তা ঠিক করুন। তারপর সে বিষয়ে পড়াশোনা করুন। তারপর সে বিষয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট চাকরিগুলো কেমন তা খুঁজে বের করুন। সে চাকরিগুলো পেতে আরও কি কি প্রশিক্ষণ নিলে আপনি অন্যদের চেয়ে এগিয়ে থাকবেন তা বের করুন।

আর্থিক স্বচ্ছলতা বাড়াতে যা করবেন

নিজের একটি বাজেট তৈরি করুন এবং সেটি মেনে চলার চেষ্টা করুন

অনেকেই আছে যারা তাদের খরচের লাগাম ধরে রাখতে পারে না। হাত খুললেই টাকা বের হয়ে যায়৷ বিশেষ করে তাদের জন্য একটি বাজেট তৈরি করা প্রয়োজন। বাজেটের বাইরে যাতে খরচ না হয়, সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে৷

বিজ্ঞতা ও বিবেচনার সঙ্গে বিনিয়োগ করে অর্থ বাড়ানোর চেষ্টা করুন

বাজেট মেনে চললে কিছু টাকা আপনি অনায়াসেই বাঁচাতে পারবেন৷ সেই টাকা নিজের কাছে জমিয়ে রাখতে পারেন। আবার আপনি ইচ্ছে করলে কোনো ব্যাংকে গচ্ছিত রাখতে পারেন। অথবা প্রতি মাসের সঞ্চয় থেকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ ব্যাংকে রেখে দিতে পারেন।

ব্যক্তিগত জীবন সুন্দরভাবে গড়ুন

পরিবারের জন্য সময় রাখুন

ব্যক্তিগত জীবন সুখের করতে আপনাকে পরিবারে সময় দিতে হবে৷ পরিবারের প্রতিটি সদস্যের খোঁজ খবর রাখতে হবে৷ তাদের সাথে মন খুলে কথা বলতে হবে৷ তাহলেই দেখবেন আপনার জীবনে দুঃখের ছায়াগুলো আর থাকছে না।

ভালো বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে গ্রুপ তৈরি করুন

জীবনে আনন্দ পেতে হলে বন্ধু বান্ধবদের সাহচার্য পেতে হয়৷ জীবনের সুখ দুঃখ গুলো তাদের সাথেই শেয়ার করতে হয়৷ কিন্তু এই বন্ধু বান্ধব হতে হবে অবশ্যই ভালো সঙ্গের।

বিভিন্ন কার্যকলাপে নিজেকে নিয়োজিত করুন

সমাজের বিভিন্ন কাজে নিজেকে নিয়োজিত করতে হবে৷ সেটি হতে পারে গাছ লাগানো, কোনো একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেয়া, গরিব মানুষের পাশে দাঁড়ানো ইত্যাদি। এগুলো আপনার মনে এক ধরনের প্রশান্তি সৃষ্টি করবে৷ যা আপনাকে বেঁচে থাকার প্রেরণা দেবে৷

নিজের শরীরের যত্ন নিন

শরীর হচ্ছে সবকিছুর ঊর্ধ্বে৷ আপনার শরীর ভালো না থাকলে মন ভালো থাকবে না। আর মন ভালো না থাকলে কোনোভাবেই কাজ করতে পারবেন না৷ তাই শরীরকে সুস্থ রাখতে হবে৷ এটি আপনাকে ভবিষ্যৎ পথ চলার জন্য এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে৷

মনের যত্ন নিন        

মন হচ্ছে মানুষের অভ্যন্তরীণ একটি বিষয়ের নাম। এর সাথে আপনার প্রতিটি কার্যকলাপ জড়িত৷ ভবিষ্যৎ গড়তে হলে আপনার মনকে সবার আগে স্থিতিশীল করতে হবে৷ যেকোনো দুঃখ, দুর্যোগ যাই হোক না কেন, এটি আপনাকে রক্ষা করতে সাহায্য করবে৷

 

[      https://m.wikihow.com/বুইলদ-য়উর-ফুতুরে]