হ্যান্ডশেক হল অন্যতম একটি সাধারণ শারীরিক অঙ্গভঙ্গি যেটা দুজন মানুষের মধ্যে হয়ে থাকে যখন তারা কোন চুক্তিতে আবদ্ধ হয় কিংবা কোন সাক্ষাতে। বাংলায় যাকে আমরা কর্মদন বলে থাকি। প্রায় সব সংস্কৃতিতে এই রীতিটি ব্যবহার হয়ে আসছে। যদিও এটা অনেকের কাছে আধুনিক একটি রীতি। যেমন আমাদের এই উপমহাদেশে এটা আধুনিক রীতি। আমরা এই রীতি কাউকে অভ্যর্থনা জানাতে, কাউকে অভিনন্দন জানাতে, কোন গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি সম্পাদনের পর ব্যবহার করি। এই রীতিটির উৎপত্তি অনেক আগে থেকেই। অনেক আগে থেকেই মানবজাতি এই রীতিটি ব্যাবহার করে আসছে।

প্রাচীনকাল থেকেই বিভিন্ন সময়ে হ্যান্ডশেক করার বিভিন্ন প্রমান পাওয়া গেছে। প্রাচীন গ্রিক সভ্যতার বেশ কিছু নিদর্শন পাওয়া গেছে তাদের ধাতব বস্তুতে যেখানে দুজন সৈন্য হ্যান্ডশেক করছে। ধারনা করা হয় এটি খ্রিষ্টপূর্ব ৫ম শতকের নিদর্শন। তাদের কাছে এটা “ ডান হাতের মিলন” নামে পরিচিত ছিল। এছাড়াও তখন মৃত মানুষের সাথে তাদের আত্মীয়দের হ্যান্ডশেক করার কিছু নমুনাও পাওয়া গেছে।

খ্রিস্টপূর্ব ৯ম শতকের দিকে আসিরিয়ান রাজা শালমানেসের ৩য় সরাসরি ব্যবলিয়ন রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করেন। তখন আসিরিয়ান এবং ব্যবলিয়ন রাজার মধ্যে একটি শান্তিপূর্ণ সাক্ষাত হয় এবং তারা হ্যান্ডশেক করেন। এই ঘটনার নিদর্শনও পাওয়া গেছে।

কীভাবে এই হ্যান্ডশেক এর প্রচলন শুরু এই নিয়ে ভিন্ন মতবাদ রয়েছে। একটি জনপ্রিয় মতবাদ হল হাতের মধ্যে কোন অস্ত্র নেই এবং কোন ক্ষতি করা হবেনা এই উদ্দেশ্য বুঝাতে হ্যান্ডশেক এর প্রচলন শুরু। আরেকটি মতবাদ হল হাত ঝাঁকানোর সময় কোন লুকানো অস্ত্র থাকলে সেটা আলগা হয়ে যাবে এবং দেখা যাবে। আবার কেউ কেউ বলেন এই রীতিটি হল একটি শপথের সমান এবং তাদের সৎ থাকার প্রতীক হিসেবে ব্যবহার হয়।

আরেকটি ইতিহাস থেকে জানা যায় ১৭শ শতকে এই রীতি বেশি জনপ্রিয় হয়। কারন এখানে দুজনকেই সমান অবস্থানে থাকা লাগে। ফলে মাথা নিচু করে কুর্নিশ করা কিংবা টুপি উঁচু করে ধরা এসব রীতির বদলে হ্যান্ডশেক অনেক কম সাড়ম্বর। ভিক্টোরিয়ার আমলে বেশ কিছু নিয়মনীতি তুলে ধরা হয় কীভাবে সঠিকভাবে হ্যান্ডশেক করতে হয়। খুব শক্ত করে ধরে হিংস্রতার সাথে হ্যান্ডশেক করা হল সহিংসতার সমান। বর্তমানে এই রীতিটি খুবই জনপ্রিয় এবং পৃথিবীর সব লোক এই রীতির সাথে পরিচিত। যদিও বর্তমানে স্থানভেদে এই রীতির বিভিন্ন নিয়ম দেখা যায়। হ্যান্ডশেক বিভিন্ন রোগ জীবাণু ছড়াতে সাহায্য করে। অনেকসময় তাই হ্যান্ডশেক করতে বাঁধা দেওয়া হয়। কারন এর ফলে অনেক ভাইরাস এবং রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থাকে।

তথ্যসূত্রঃ https://factsc.com/history-behind-handshake/ https://en.wikipedia.org/wiki/Handshake