আজকে আমরা যে বিদ্যুৎ উপভগ করছি আমাদের জীবনের সর্বত্র সেটা আজ থেকে একশ বছর আগেও এত পর্যাপ্ত ছিলনা। এই বিদ্যুৎ বাণিজ্যিক ভাবে উৎপাদন শুরু হয়েছে উনিশ শতকের শেষের দিকে। তবে এই বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য একটি বেশ স্নায়ু যুদ্ধ চলেছে। যেই যুদ্ধের নাম “তড়িৎযুদ্ধ” বা War Of Current. বিজ্ঞানী থমাস আল্ভা এডিসন এবং নিকোলা টেসলার মধ্যে এই যুদ্ধ চলেছিল। আমাদের আজকের এই লেখা সেই যুদ্ধ নিয়ে।

আমরা জানি তড়িৎ প্রবাহ দুই ধরনের। এসি এবং ডিসি। এসি মানে হল অলটারনেটিভ তড়িৎ প্রবাহ এবং ডিসি মানে ডাইরেক্ট তড়িৎ প্রবাহ। দুই ধরনের তড়িৎ প্রবাহের গঠন, কাজ, সুবিধা , অসুবিধা আলাদা।

এসি কারেন্টে ভোল্টেজ বদলাতে থাকে। এবং দূরবর্তী জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায়। আমাদের বাসাবাড়ির মোটর, ডিশ ওয়াশার, ফ্রিজ ইত্যাদিতে এসি কারেন্ট ব্যবহার করা হয়। অপরদিকে ডিসি কারেন্টে ভোল্টেজ এক থাকে। আমাদের মোবাইল, ল্যাপটপ, ইত্যাদিতে ডিসি কারেন্ট ব্যবহার হয়। ডিসি কারেন্ট হল ব্যাটারির মত। সরাসরি তড়িৎ প্রবাহ হবে। কিন্তু ডিসি কারেন্ট দূর অঞ্চলে ব্যবহার করা যায়না। কারন এটি দূরে বহন করতে গেলে এর তড়িৎ প্রবাহ আস্তে আস্তে কমতে থাকে।

থমাস আল্ভা এডিসন ডিসি কারেন্ট নিয়ে কাজ করেন। তিনি ছিলেন একজন দক্ষ ব্যবসায়ী। তিনি অনেকগুলো কাজের সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ডিসি কারেন্ট ব্যবহার করতে চান। কিন্তু ডিসি কারেন্ট যেহেতু দূরে নেওয়া যায় না তাই তিনি ঠিক করেন শহরের প্রতিটা পয়েন্টে বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করবেন। ঠিক ওই সময় তাঁর অধিনেই এক সময় কাজ করা নিকোলা টেসলা এসি কারেন্ট নিয়ে আসেন। তিনি জর্জ ওয়েস্টিং হাউস এর অধিনে থেকে এসি কারেন্ট নিয়ে কাজ করেন।

জর্জওয়েস্টিংহাউস

যেহেতু বিজ্ঞানী এবং ব্যবসায়ীরা এসি কারেন্ট এর ব্যবহার নিয়ে গবেষণা করছিলেন যেটা এডিসন মেনে নিতে পারেননি। কারন এতে ব্যবসায়ীক লাভের ব্যাপার ছিল। সেই সময় দুপক্ষই তাদের  মতামতকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান। তখন দুপক্ষের মধ্যে একটি স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়। এই যুদ্ধই ওয়ার অফ কারেন্ট নামে পরিচিত।

 

নিকোলাটেসলা

এডিসন এসি কারেন্ট নিয়ে মিথ্যা প্রচারণা চালান। এবং বিভিন্ন ভুল তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করতে থাকেন। এমনকি তিনি পশুর উপর এসি কারেন্ট প্রয়োগ করে দেখাতে চান এসি কারেন্ট অনেক বিপদজনক। যদিও তাঁর এই প্রচারণা শেষ পর্যন্ত বৃথা হয়। ১৮৯৩ সালে শিকাগোতে এক প্রতিযোগিতায় এডিসনের ডিসি কারেন্ট টেসলার এসি কারেন্টের কাছে হেরে যায়। এবং পরে ১৮৯৬ সালের ৬ নভেম্বর নায়াগ্রা ফলস থেকে এসি কারেন্ট এর সাহায্যে উৎপাদিত বিদ্যুৎ দ্বারা বাফেলো শহর আলোকিত হয়।

নায়াগ্রাজল্প্রপাতেবিদ্যুৎউৎপাদন

 

হাতির উপর এডিসনের চালানো এসি কারেন্ট।

বর্তমানে বাসা বাড়ির লাইনে যদিও এসি কারেন্ট ব্যাবহার হচ্ছে। কিন্তু ল্যাপটপ, মোবাইল, সোলার সিস্টেম এসবে ডিসি কারেন্ট চলে। তাই বলা যায় এই যুদ্ধ এখনও শেষ হয়নি। তবে যেটাই হোক এডিসন কিংবা টেসলা দুজনের আবিষ্কারই ছিল অন্তত গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমান যুগের সব ইলেক্ট্রনিক মাধ্যমেই তাদের অবদান রয়েছে।

তথ্যসূত্রঃ

https://en.wikipedia.org/wiki/War_of_the_currents

https://energy.gov/articles/war-currents-ac-vs-dc-power

https://www.autodesk.com/products/eagle/blog/war-currents-ac-vs-dc/