কর্মব্যস্ত জীবনের প্রতিটি ঘটন কিংবা অঘটন সবাই মনের মধ্যে ধারণ করে রাখে না। কিন্ত্তু বিশেষ কিছু, যা মানুষ বিশেষভাবেই মনে রাখতে সচেষ্ট থাকে। ঘটন কিংবা দুর্ঘটন; প্রতিটিরই একটা তাৎপর্য থাকে এবং তা যে কোন মানুষের মনোজগতে ব্যপক পরিবর্তন আনতে পারে। সফলতায় সবাই অনুপ্রেরণা পায়, বৈপরীত্যক্রমে ব্যর্থতায় অনুপ্রেরণা হারানোটা ই স্বাভাবিক ছিল এবং এ কথা অনস্বীকার্য যে, বেশিরভাগ মানুষ ই ক্ষণিকের ব্যর্থতাকে সামগ্রিক ফলাফল হিসেবে বিবেচনা করে কর্মোদ্যম হারিয়ে ফেলেন।

কিন্ত্তু অন্য একশ্রেণির মানুষ আছে যারা ব্যর্থতা থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন করে, শিক্ষা নেয়, অনুসন্ধিৎসু হয় ব্যর্থতার সম্ভাব্য কারণগুলোকে চিহ্নিত করতে। আর সর্বোপরি পুনর্বার অনুপ্রেরিত হয় নতুন উদ্যমে কাজে নামার।

লেখাটা দ্বিতীয় দলের লোকদের জন্য নয়, যারা স্বপ্রণোদিত; লেখাটা তাদের জন্য যারা ব্যর্থতাকেই পরিসমাপ্তি হিসেবে বিবেচনা করেন। এখানে সহজ কিছু কার্যকরী কৌশলকে বর্ণনা করা হয়েছে, যা পরিসমাপ্তির অবসান ঘটিয়ে  নতুন উদ্যমে শুরু করতে তাড়না যোগাবে।

 

প্রকৃতির শিক্ষা কাজে লাগান

 

প্রকৃতির সান্নিধ্য মানুষের মনে প্রশান্তি যোগায়। মাঝে মধ্যে প্রকৃতির মাঝে নিজেকে টেনে নিয়ে যান। প্রকৃতির উদার আয়োজন আপনার কর্মক্লান্ত মনের অস্থিরতা আর অবসাদগ্রস্থতাকে মুহূর্তে দূর করে দিতে পারে। আপনার মধ্যে অনুপ্রেরণার বীজ বপন করে দিতে প্রকৃতি মোটে ও কার্পণ্য করবে না।

আপনার দৈনন্দিন জীবনের শব্দ থেকে নিজেকে সরিয়ে ফেলে স্বচ্ছতা খুঁজে  বের করে আনার চেষ্টা করুন, হতাশা কে ঝেড়ে ফেলে দিয়ে প্রকৃতির অনুপম শিক্ষার ভান্ডার থেকে নিজের জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষাটাকে মনের মধ্যে গেঁথে নিয়ে আবার শুরু করুন।

 

বুদ্ধিদীপ্ত ও উচ্চাকাঙ্খী মানুষের সংস্পর্শে থাকুন

 

মানুষ মাত্রই অনুকরণ প্রিয়।  বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রতিটি মানুষ তার আত্মীয়, প্রিয় ব্যক্তিত্ব অথবা প্রিয় বন্ধু অথবা আপনজনদের চিন্তাভাবনা দ্বারা প্রভাবিত হয়। বলা যায়, এটা প্রকৃতিসিদ্ধ সত্য।

এই সত্যটাকে পরিপূর্ণভাবে কাজে লাগানোর জন্য আপনি আপনার সীমারেখার মাঝে সবসময় এমন কিছু মানুষ কে বাছাই করুন যারা সবসময় তাদের প্রতিটি চিন্তাভাবনা অথবা কার্যক্রমের মাধ্যমে তাদের বুদ্ধিদীপ্ত মন ও সুন্দর চিন্তাভাবনার পরিচয় দেয়।  আপনি নিশ্চয়ই আপনার মনে উচ্চাশা লালন করেন।

আপনি নিশ্চিত থাকবেন যে আপনার আশেপাশে থাকা প্রিয় ব্যক্তিত্বগুলোর বুদ্ধিদীপ্ত মন আপনার মনে ও দীপ্তি ছড়াবে।

 

নিজেকে চাঙ্গা রাখুন

 

আপনি নিশ্চয়ই একমত হবেন যে,  পরিকল্পিত ও সুষ্ঠু চিন্তাভাবনা ও সেই অনুযায়ী কাজ আপনাকে আপনার কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছে দিতে পারে। এইজন্যই চিন্তাভাবনাকে সবসময় তাজা রাখুন ; নিয়মিত স্বপ্ন দেখুন ; আর পরিকল্পনা করুন স্বপ্নকে বাস্তবে রুপ দেয়ার । প্রতিদিন দেখা এই ছোট ছোট স্বপ্নগুলোই আপনার মনে কাজের প্রেরণা যোগাবে।

 

অসাধারণ কৃতিত্ব অর্জনের প্রচেষ্টা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন

 

প্রতিটি বৃহৎ অর্জন ই ক্ষুদ্র একটি প্রচেষ্টা থেকে ই গতি লাভ করে। সাধারন অর্জনগুলোই একসময় অসাধারণ হয়ে দেখা দেয়। কিন্তু বিষয়টি এমন নয় যে, শুরুতেই আপনি অসাধারণ কিছু অর্জন করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিবেন।

বরং এই ধরনের অযৌক্তিক ও অবাস্তব চিন্তার লালন কিংবা প্রতিফলন ঘটানো হিতে বিপরীত ফলাফল এনে দিতে পারে। আপনি অবশ্যই লেগে থাকবেন – আপনার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিয়ে, আপনার প্রবল ইচ্ছাশক্তি নিয়ে – এর পরে অর্জনের বিষয়টি সময়ের হাতে ছেড়ে দিন।

 

শারীরিক ও মানসিক সুস্থতা নিশ্চিত করুন

 

আপনার শারীরিক অসুস্থতা কিংবা মানসিক অবসাদগ্রস্থতা আপনার চিন্তা শক্তিকে দুর্বল করে দিতে পারে। শারীরিক দুর্বলতা আপনার মধ্যে কর্মক্লান্তি কিংবা কর্মে অনীহা এনে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট । বিপরীতে সুস্থ শরীর আপনাকে কর্মোদ্যমী করবে। তেমনিভাবে মানসিক সুস্থতা ইচ্ছাশক্তিকে করবে বেগবান। আর সবচেয়ে বড় বিষয় হলো, সুস্থ দেহ ও সুস্থ মনসম্পন্ন ব্যক্তি  নিশ্চিতভাবেই অন্যদের তুলনায় বেশি অনুপ্রাণিত থাকে।

 

পাঠ্ বহির্ভূত বই পুস্তক পড়ার অভ্যাস করুন

 

শিক্ষা অর্জনের উদ্দেশ্য শুধুমাত্র ডিগ্রি অর্জন ও  চাকরি করা ই নয়, বরং তার মূল উদ্দেশ্য হল নিজকে সমৃদ্ধ করা। আর সমৃদ্ধ করার এই কাজটিতে  পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি অনেক উৎসই আছে  যা আপনার চেনা-জানার পরিধিটাকে অনেক বাড়িয়ে  দিতে পারে।   আর এ জন্যই পাঠবহির্ভূত উৎস থেকে শেখার ইচ্ছা টা আপনার মধ্যে থাকতে হবে।

পাঠ্যপুস্তক লব্ধ জ্ঞান অল্প কিছু বিষয়ের মধ্যে  সীমিত থাকে। বিভিন্ন বিষয়ের উপর বই কিংবা ম্যাগাজিন পড়ার অভ্যাস গড়ে তোলার মাধ্যমে আপনি আপনার সীমাবদ্ধতাকে ছাড়িয়ে যেতে পারেন। ভালো বিষয়ভিত্তিক বই যেমন আপনার চিন্তাশক্তিকে অনুপ্রেরণা যোগাবে, তেমনি আনবে আপনার সমৃদ্ধি।

 

আসলে আপনার অনুপ্রেরণা আপনি নিজেই। ভালো লাগার বিষয়গুলোর প্রতি বেশি বেশি গুরুত্ব দিন। মনে করতে চেষ্টা করুন অতীতের কোন ভালো ঘটন যা আপনাকে উদ্দীপনা যুগিয়েছিল। সময় কাটান প্রিয় ব্যক্তিদের মাঝে যারা আপনার ভালো দিকগুলোর বিশেষ প্রশংসা করেন। আপনি নিশ্চয়ই জানেন, কোন বিষয়গুলো আপনাকে সবচেয়ে বেশি ক্রিয়াশীল রাখতে সক্ষম।

 

Top Universities